জীবন বদলে দেবার মতো অনুপ্রেরণামূলক গল্প

0
37
অনুপ্রেরণামূলক গল্প
অনুপ্রেরণামূলক গল্প

আসসালামু আলাইকুম। আমার প্রিয় বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন? আশা করি আল্লাহর রহমতে আপনারা সবাই ভালো আছেন। আজ আমি আপনাদের কে একটি অনুপ্রেরণামূলক গল্প বলবো। চলুন তাহলে শুরু করা যাক অনুপ্রেরণামূলক গল্প টি।

আজকে আমি আপনাদের এমন কিছু কথা বলবো যা আমাদের সবার জীবন এ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই অনুরোধ করবো মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য।

একবার আঠারো বছরের একটা ছেলে তার বাবার সাথে কোথাও যাচ্ছিলো ট্রেন এ করে। ছেলেটি জানালার পাশের সিট এ বসেছিল। সে জানালা দিয়ে বাহিরের দিকে তাকিয়ে তার বাবাকে বলছিলো, দেখো বাবা সব গাছ গুলো কেমন করে আমাদের পিছনের দিকে সরে যাচ্ছে। ছেলের কথা শোনার পর তার বাবা হালকা হাসলেন।

তাদের পাশেই বসে ছিলো এক দম্পতি। আর তারা ভাবছিলো ছেলেটি হয়তো পাগল। তাছাড়া এমন কথা কেউ কি করে বলে এত বড় হয়েও। আবার তার পরেই সেই ছেলেটি বলে উঠলো দেখো বাবা আকাশের মেঘ গুলো যেন আমাদের সাথে সাথে যাচ্ছে। পূর্বের মত বাবা আবারো মৃদু হাসলেন।

পাশের সিট এ বসে থাকা দম্পতি এবার ছেলেটির বাবাকে বললেন, আপনি আপনার ছেলেকে একজন ভালো ডাক্তার এর কাছে নিয়ে যান নি কেন? এবার ছেলেটির বাবা হালকা হেসে বললেন, ঠিকি বলেছেন আমি আমার ছেলেকে ডাক্তার এর কাছ থেকেই নিয়ে আসছি। আসলে আমার ছেলেটি জন্ম থেকেই অন্ধ ছিলো।

সে কোন কিছুই দেখতে পেত না। আজকেই সে তার চোখ ফিরে পেয়েছে। এটি শুনে দম্পতি তাদের ভুল বুঝতে পারলো এবং তাদের চোখ এ পানি চলে আসলো। নিজের কাছে তাদের নিজেকে অনেক ছোট মনে হলো।

প্রিয় পাঠক, এইপৃথিবীতে প্রত্যেকটি মানুষের একটি অতীত রয়েছে। তাই কারো সম্পর্কে সঠিক ভাবে না জেনে কখনো তাকে বিচার করবেন না। না জেনে কোন কিছু বলবেন ও না। কারন এমনটা হতে পারে সত্যিটা সামনে আসার পর আপনাকে আফসোস করতে হবে। নিজেকে ক্ষমা করতে পারবেন না। যা এই অনুপ্রেরণামূলক গল্প টিতে বাবা কে বলা ছেলেটির অতীতের মত।

এরকমই আরো একটি অনুপ্রেরণামূলক গল্প

একবার এক দম্পতি তাদের তিন সন্তানকে নিয়ে এক মেলায় ঘুরতে চলে যায়। বাচ্চারা অনেক খুশি ছিল। কেননা তাদের পরিবার তেমন সচ্ছল ছিল না যে তারা মেলায় যেতে পারতো। অনেক দিন পর তারা কোথাও মেলায় ঘুরতে এসেছে জন্য তারা অনেক খুশি।

বাবা তাদের বললেন, তোমরা সবাই এখানে দাঁড়াও আমি তোমাদের জন্য টিকেট নিয়ে আসতেছি। ঐ লোকের ছোট ছেলেটি বলে আমিও তোমার সাথে যাবো বাবা। ছেলেকে না করতে পারলো না। বাবাও বললো চলো আমরা সবার জন্য টিকেট নিয়ে আসি। এই বলে ছেলেকে নিয়ে বাবা টিকেট কাউন্টারের সামনে লাইনে দাঁড়িয়ে পড়লো।

ছেলেটি কোলে থেকেই বললো যে, বাবা আমি ভিতরে গিয়ে এইটা খাবো, ঐটা খাবো, এটা নেবো ওটা নেবো ,বাবা ছেলেকে বললো ঠিক আছে সব নেবে সব খাবে। আজকে আমরা এখানে আনন্দ করার জন্যই এসেছি। কিছুক্ষণ পর সেই ব্যক্তির সিরিয়াল চলে আসলো। টিকেট নিতে তার টাকার দরকার তাই তিনি মানিব্যাগ বের করলেন।

কিন্তু সেখানে ছিলো মাত্র দুইশত টাকা মাত্র। লোকটি কাউন্টার এ বললো ভাই আমাকে পাচঁ জনের জন্য টিকেট দিন। কাউন্টারে বসা লোকটি বললো, পাচঁটা টিকিট পাচঁশত টাকা বললো। এই কথা শুনে লোকটির যেন পায়ের নিচে মাটি নেই। কেননা তার কাছে আছেই মাত্র দুইশত টাকা। আর টিকেট কিনা আড়াইশ টাকা।

ঐ সময়ের মধ্যে তার মাথায় হাজারো চিন্তা ভাবনা ভীড় জমাতে থাকলো। কিভাবে আমি আমার পরিবারবে ভিতরে প্রবেশ করাবো, কি খাওাবো, কি কিনে দেবো, কতদিন পর পরিবার নিয়ে আসলাম আরো অনেক কিছু তার মাথায় আসে। ঠিক তখনি কাউন্টারের লোকটি বলে উঠলো, দাদা টাকা দিবেন? পিছনে আরো অনেক লোক দাঁড়িয়ে আছে।

জীবনে সাহায্য কিভাবে করবেন

ঠিক তখনি পিছনের একলোক তার কাধে হাত দিয়ে বললো ভাই নিচে আপনার পায়ের কাছে আপনার পাঁচশত টাকা পড়ে গেছে তুলে নিন। পিছনে তাকিয়ে দেখতেই নিচে পড়ে থাকা পাঁচশ টাকায় চোখ পড়লো। কি করবেন বুঝতে না পেরে তিনি টাকাটি তুলে নিলেন এবং আড়াইশ টাকা দিয়ে টিকেট কেটে ওখান থেকে চলে আসলেন।

কিন্তু সব কিছুই ছোট বাচ্চাটি লক্ষ্য করলো। দেখলো কিভাবে তার বাবা নিজের পকেট থেকে পাঁচশ টাকা নিচে ফেলে দিয়ে অচেনা গরীব লোককে সাহায্য করলো। জীবনে কারো উপকার করার জন্য খুব বেশি ধনী হবার দরকার নেই। এই অনুপ্রেরণামূলক গল্প টি থেকেও আমাদের কিছু শেখা উচিত।

আমরা যেখানে আছি, যে অবস্থায় আছি যে ভাবে আছি, এই অবস্থায় এই ভাবে যদি কারো উপকার করতে পারি এই অনুপ্রেরণামূলক গল্প টির মত এটিই অনেক। আপনার এই সামান্য উপকার কারো জীবনে হয়তো খুশি নিয়ে আসতে পারে। আর আপনি যদি কারো জীবনে খুশি নিয়ে আসতে পারেন, তবে মনে রাখবেন তাহলে আপনার জীবনে তা দ্বিগুণ হয়ে ফিরে আসবেই।