আলাদিনের মায়ার প্রদীপের গল্প

0
40
আলাদিনের মায়ার প্রদীপ এর গল্প
আলাদিন ও মায়ার প্রদীপ

আলাদিনের মায়ার প্রদীপ এর গল্প টিতে আলাদিন তার মায়ের সাথে গ্রামে বাস করতো। তারা খুবই গরিব ছিল আর আলাদিন খুবই পরিশ্রম করতো তাদের সংসার চালানোর জন্য। আলাদিন বাজারে কলা বিক্রি করতো। একদিন কলা আনতে গিয়ে একজন লোকের সাথে দেখা হয়।

আসসালামুয়ালাইকুম বন্ধুরা। আপনারা সবাই কেমন আছেন? আশা করি, মহান আল্লাহ তা-আলার রহমতে আপনারা সবাই ভালো আছেন। আজকে আমি আপনাদেরকে রুপকথার গল্প আলাদিনের মায়ার প্রদীপ এর গল্প টি শুনাবো। চলুন আর কথা না বাড়িয়ে আমরা আলাদিনের মায়ার প্রদীপ এর গল্প –

আলাদিনের মায়ার প্রদীপ এর গল্প

অনেক দিন আগের কথা। কোন এক গ্রামে বাস করত এক ছেলে সে খুব গরিব ছিল কিন্তু মনটা খুব বড় ছিল। সে তার মায়ের সাথে বাস করত তার নাম ছিল আলাদিন। সে সংসার চালানোর জন্য কঠিন থেকে কঠিন তম কাজ করত। আলাদিন বাজারে বাজারে কলা বিক্রি করে সংসার চালাত। সে একদিন বাজারে বেচার জন্য কলা আনতে যাচ্ছিল।

কিন্তু এমন সময় তার একটি লোকের সাথে দেখা হয়। সে লোকটির ছিল ঘন দাঁড়ি। আর লোকটি ছিল খুবই লম্বা। সে লোকটি আলাদিনকে একটি সোনার মোহর দেখিয়ে বলে, আমি তোমার বাবার বন্ধু তোমার কি এই মোহটি চাই। কি! সোনার মোহর? আলাদিন জবাব দিল। আমি তো সারা জীবন কলা বেঁচে এরকম একটা মোহর পাব না।

লোকটি আলাদিন কে সামনে একটা গর্ত দেখিয়ে বলে, তোমাকে এর মধ্য দিয়ে যেতে হবে। তারা দু-জন মিলে গর্ত থেকে পাথটি সরায়। এবং বেরিয়ে আসে একটা গুহা। ছোট হওয়ার কারণে আলাদিন সেই গর্তের ভিতরে প্রবেশ করে। তারপর সে ছোট ছোট পায়ে নিচের দিকে নামতে থাকে।

আলাদিন নিচে নেমে দেখে সেই গর্তের ভিতরে একটা পুরনো প্রদীপ জ্বলছে। সে চমকে ওঠে এবং যখন সে দেখে গুহার মধ্যে মূল্যবান ধন-সম্পত্তির মধ্যে হিরা, মতি, সোনা কোন কিছুরেই অভাব ছিল না। সে আস্তে আস্তে গুহার ভিতরে ঢুকতে থাকে।

হঠাৎ করে সে একটা শব্দ শুনতে পায়। সেই শব্দ শুনে সে ভিতু হয়ে যায়। সেই লোকটি তাকে বলেছিল এই ছেলে তুমি ঐ গুহার ভিতরে একটা পুরনো প্রদিপ দেখতে পাবে। প্রদিপটিকে উঠিকে আমার কাছে নিয়ে আসবে। আলাদিনের মনে হল এখানে এত ধন-সম্পত্তি থাকতে কেন সে এই প্রদীপ টিকে আনতে বলে।

এই কথা ভাবতে ভাবতে সে আবার সিড়ি দিয়ে উপরে ওঠতে থাকে। আলাদিন গুহা থেকে ওঠতে না ওঠতেই লোকটি বলে, প্রদীপটা আমাকে দাও তারাতারি। আলাদিন এইবার বুঝতে পারে যে,লোকটির মতলব ঠিক নেই। আলাদিন বলে, আমাকে আগে বাহিরে বের কর। লোকটি বলে তুমি যদি আমাকে প্রদীপ টা না দাও তাহলে আমি এই গুহার মুখটা বন্ধ করে দেব।

আলাদিনের প্রদীপ পাওয়া

এই কথা বলার সাথে সাথে আলাদিনের মায়ার প্রদীপ এর গল্প টির লোকটি গুহার মুখ বন্ধ করে দিতে থাকে। আলাদিন ভয় পেয়ে বলে, শুনুন দরজা বন্ধ করবেন না। কিন্তু লোকটি দরজা বন্ধ করে দেয়। দরজা বন্ধ করার সাথে সাথে আলাদিনের পায়ের কাছে লোকটির একটা আংটি এসে পড়ে। আলাদিন আংটি টি নিজের হাতে পড়িয়ে নেয়। আংটি টি পড়ার সাথে সাথে পুরো গুহা অন্ধকার হয়ে যায়।

এভাবে কয়েক সেকেন্ড চলার পর সেই আংটি থেকে বেড়িয়ে আসে একটি জিন। জিনটি আলাদিন কে বলে, কি চাও বল। তবে মনে রেখ শুধু তিনটা ইচ্ছা পূরণ হবে। আলাদিন প্রথমে বলে, আমি আমার ঘরে যেতে চাই। আলাদিন এই কথা বলার সাথে সাথে সে নিজের ঘরে গিয়ে পৌছে যায়। তা দেখে তার মা অবাক হয়ে যায়।

আলাদিন তার মাকে সব কথা খুলে বলে। আলাদিন গুহা থেকে আনা পুরনো প্রদীপটি ঘসতে থাকে। হঠাৎ করে প্রদীপ থেকে ধোয়া বের হতে থাকে। আর সেই ধোয়া থেকে আর একটি জিন বের হয়। জিনটি প্রথমে বেরিয়ে বলে বাহ বাহ আমি এই মায়ার প্রদীপ এর ভিতর বহু বছর বন্দি ছিলাম।

আপনি আমাকে মুক্ত করেছেন। আপনি কি চান বলুন। আলাদিন ও আলাদিনের মা অবাক হয়ে গেল প্রদীপ টির ভিতরে থাকে জিনের কথা শুনে। জিনটি আবার বলে, যা চাই তাই চাও। আলাদিন সাথে সাথে বলে আমাদের জন্য ভালো কোন খাবার নিয়ে আসো। বলার সাথে তাদের সামনে টেবিল ভর্তি খাবার চলে আসে।

সেই খাবারের মধ্যে সব ধরনের খাবার ছিল। ফল মূল থেকে শুরু করে সব ছিল এই খাবারে। সে দিনের পর থেকে আলাদিন ও তার মা যা চাইত তাই এনে দিত সেই জিনটি। এভাবে তারা ভালোভাবে আনন্দে জীবন কাটাতে লাগল।

আলাদিনের প্রদীপ এর ক্ষমতা

আলাদিনের মায়ার প্রদীপ গল্পটিতে, আলাদিন একদিন বাজারে গেল। সেখানে গিয়ে তারা একটা পালকি দেখতে পেল। সে জানতে পাড়ল সেই পালকির মধ্যে আছে বাদশার মেয়ে জেসমিন। পালকিতে তার মুখ দেখে সে তাকে ভালোবেসে ফেলল। আলাদিন বাড়িতে ফিরে জেসমিনের কথা বলে তার মাকে। তার মা সেই কথা শুনে জিনের কাছ থেকে একটা সোনা ভর্তি বাক্স নেয়। তাই নিয়ে বাদশার দরবারে চলে যায়।

আর তিনি চলে বাদশার সাথে দেখা করতে। আর সেই সোনা ভর্তি বাক্সটা  বাদশার কাছে পৌছে দেয়। আর বাদশা খুশি হয়ে আলাদিনের মায়ের সাথে দেখা করতে চায়। আলাদিনের মা তার ছেলের ভালোবাসার কথা জানায়। তখন বাদশা বলে আলাদিন তার শক্তি ও ধন-সম্পদ পরীক্ষা দিতে হবে।

তখন বাদশা বলে, আপনার ছেলে যদি আমার জামাই হতে চায় তাহলে তাকে বলুন আমাকে আরও ৪০টি বাক্স পাঠাতে। যাতে  হিরা-মতি জহরত দিয়ে ভর্তি থাকবে। এই কথা শুনে আলাদিনের মা মন খারাপ করে বাড়ির দিকে চলে আসে। তারপর সে ভাবতে লাগলো জিন কি এত কিছু করতে পারবে?

এদিকে আলাদিনের মা আলাদিন কে সব কথা বলে। আলাদিন সেই  কথা শুনে মায়ার প্রদীপ টি ঘসতে লাগল। তার কিছুক্ষন পর জিন এসে হাজির হল। আলাদিন বাদশার ইচ্ছার কথা খুলে বলল। এই কথা শুনে জিন হাতে তিনটা তালি দেয়। সাথে সাথে ৪০টি বাক্স ও ৪০টি সিপাই চলে আসে।

তারা সবাই বাদশার দরবারে চলে গেল। এদিকে বাদশা যাই চেয়েছে তাই আলাদিন পাঠিয়েছে। আর এই কান্ড দেখে বাদশা খুশি হয়ে যায়। বাদশা ভাবে তাহলে কত ধন-সম্পদ আছে এই ছেলের কাছে। এই কথা ভেবে বাদশা আলাদিনকে ডেকে বলে, আমি চাই আমার মেয়ে প্রাশাদের মত কোন ঘরে থাকে। যদি তুমি এমন ঘরে রাখতে পার তাহলে তুমি আমার মেয়েকে নিয়ে বিয়ের কথা ভাব।

বাদশার কাছে এই কথা শুনে এসে আলাদিন আবার সেই মায়ার প্রদীপ এ ঘসা দেয়। তারপর জিন চলে আসে তখন আলাদিন রাজার ইচ্ছার কথা খুলে বলে। এই কথা শুনে জিন হাতে তিনটা তালি দেয় এবং আলাদিনের সামনে একটা বড় প্রাশাদ চলে আসে।

আলাদিনের প্রদীপ হাতছাড়া

আলাদিনের বিশ্বাস হতে ছিল না যে এই হতে পারে। এই দেখে বাদশা মনে মনে ভাবে আলাদিনের মত ধনী ছেলে সে আর পাবে না। তাদের বিয়ে হয় খুব ধুম-ধাম করে। তাদের এই বিয়ের অনুষ্ঠান তিন দিন পর্যন্ত চলতে থাকে। আলাদিন যে অনেক ধনী তা সকলে জানত। কিন্তু আলাদিন ও তার মা কখনো জেসমিনকে জিনের কথা বলেনি।

একদিন আলাদিনের প্রাশাদের সামনে একটা লোক এসে বলে, পুরনো প্রদীপ দিয়ে দাও আর বদল করে নাও নতুন প্রদীপ। এই কথা শুনে জেসমিন মায়ার প্রদীপ দিয়ে নতুন প্রদীপ নেয়। এই লোকটি হল সেই লোক যে, আলাদিনকে গর্তে বন্ধি করে রেখেছিল।

সেই লোকটি মায়ার প্রদীপ হাতে পেয়ে সে জিন কে ডাকে। আর যখন জিন আসে তখন সেই লোকটি বলে, এই জিন তুমি এই প্রাশাদ ও জেসমিন কে অন্যত্ররে নিয়ে যাও। এই কথা শুনে জিন প্রাশাদ ও জেসমিন কে অন্যত্ররে নিয়ে যায়। তারপর আলাদিন যখন বাড়ি ফিরে সে দেখে জেসমিন নেই তার প্রাশাদও নেই তা দেখে আলাদিন অবাক হয়ে যায়।

আলাদিনের প্রদীপ এর বিনাশ

আলাদিনের গল্প টিতে আলাদিন বুঝতে পারে নিশ্চই কিছু একটা হয়েছে। তাই সে তার আগের ঘরে চলে যায় এবং বের করে সেই আগর আংটি। আলাদিন সেই আংটি হাতে পরে নেয়। তার কিছুক্ষণ পর বেড়িয়ে আসে সেই পুরনো জিন। জিন বেড়িয়ে এসে বলে, তুমি যা চাও, তাই পাও। কিন্তু মনে রেখ শুধু দুটো ইচ্ছা।

জিনকে আলাদিন বলে, আমাকে জেসিমনের কাছে নিয়ে যাও। সাথে সাথে আলাদিন তার নিজের বাসায় গিয়ে পৌছে যায়। আলাদিন লুকিয়ে লুকিয়ে যাচ্ছিল যাতে করে তাকে কেউ দেখতে না পারে। আলাদিন চুপি চুপি দেখছিল জেসমিন সেই দুষ্ট লোকটির সেবা করছিল। আর সেই মায়ার প্রদীপ ছিল সেই দুষ্টু লোকটির কাছে।

আলাদিন আস্তে আস্তে এক কোনায় চলে যায় এবং হাতে আংটি পরে নেয়। আর সেই বড় জিনটি চলে আসে। সে আবার বেড়িয়ে এসে বলে, যা চাও, তাই চাও। জিন বলে, মনে রেখ শুধু একটি ইচ্ছা। এবার আলাদিন বলে, তুমি ঐদুষ্টু লোকটিকে সারা জীবনের জন্য ওপারে পাঠিয়ে দাও। সাথে সাথে লোকটি অজ্ঞান হয়ে যায়। আর আলাদিনকে দেখে জেসমিন খুব খুশি হয়ে যায়।

আর আলাদিন জেসমিনকে পুরো ঘটনাটা খুলে বলে। এই কথা শুনে জেসমিন চমকে ওঠে। আলাদিন আবার মায়ার প্রদীপ হাতে তুলে নেয় এবং ঘসা দেয় সাথে সাথে জিন চলে আসে। জিন বলে, যা চাও, তাই চাও। আলাদিন বলে, এই লোকটিকে এমন জায়গায় পাঠিয়ে দাও যেন সে কোনদিন আমাকে খুজে না পায়।

আর সেই লোকটি সাথে সাথে অদৃশ্য হয়ে যায়। আলাদিন আবার জিনকে বলে, তার প্রাশাদটিকে সেই আগের জায়গায় নিয়ে যেতে। জিন সাথে সাথে তার প্রাশাদটিকে সেই আগের জায়গায় নিয়ে যায়। বাড়িতে আসার পর যখন আলাদিন তার মাকে দেখতে পায় তখন সে তার মাকে জরিয়ে ধরে কাঁদতে থাকে। এর পর থেকে আলাদিন, জেসমিন ও তার মা আনন্দে দিন কাটাতে থাকে। তারপর থেকে তাদের আর কোন বিপদ আসেনি।

বন্ধুরা এই ছিল আজকের আলাদিনের মায়ার প্রদীপ এর গল্প । কেমন লাগলো আজকের আলাদিনের মায়ার প্রদীপ এর গল্প তা কমেন্ট করে জানাবেন। ধন্যবাদ।